ঢাকা বুধবার, ২৪শে জুলাই ২০২৪, ১০ই শ্রাবণ ১৪৩১


ঘুষের টাকা বহনে চাকরি হারাচ্ছেন শুল্ক কর্মকর্তা


২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ১২:০৯

আপডেট:
২৪ জুলাই ২০২৪ ২০:২১

ঘুষের টাকা বহন করে সাময়িক বরখাস্ত (সাসপেন্ড) হওয়া শুল্ক বিভাগের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা খন্দকার মুকুল হোসেনের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। বিমানবন্দরে ২৩ লাখ টাকাসহ আটক হওয়া এ কর্মকর্তাকে এর আগে সাময়িক বরখাস্ত করে সংস্থাটি। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়। এতে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় শাস্তি দেওয়ার মতামতের জন্য এ-সংক্রান্ত চিঠি সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনে (বিপিএসসি) পাঠানো হয়েছে। মতামত এলে স্থায়ীভাবে চাকরি হারাতে পারেন তিনি। এনবিআর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, বেনাপোল কাস্টম হাউসে চাকরিরত অবস্থায় সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা খন্দকার মুকুল হোসেন অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটে ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসেন। বিমানবন্দরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে আটক করে একটি গোয়েন্দা সংস্থা। এ সময় তার কাছ থেকে প্রায় ২৩ লাখ টাকা পাওয়া যায়। এ টাকার বৈধ উৎস দেখাতে না পারায় তাকে আটক করা হয়। অর্থ পাচারের উদ্দেশ্যে এ টাকা বহন করেছেন বলেও অভিযোগ ওঠে। পরে বিষয়টি আমলে নিয়ে এনবিআর এ শুল্ক কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে এবং বিভাগীয় মামলা হয়। তদন্তে দুই দফায় তাকে শুনানিতে ডাকা হয়। সেখানেও এ কর্মকর্তা এ অর্থের বৈধ উৎস দেখাতে পারেননি। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগগুলোও খতিয়ে দেখে এনবিআর। তার বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য গত মঙ্গলবার বিপিএসসির মতামত জানতে চেয়ে চিঠি দিয়েছে এনবিআর। এতে বলা হয়েছে, বেনাপোল কাস্টম হাউসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা খন্দকার মুকুল হোসেনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলায় গুরুদণ্ড আরোপের পরবর্তী কার্যক্রমের বিষয়টি জানতে চেয়েছে এনবিআর।

সূত্র আরও জানায়, বিভাগীয় মামলায় দোষী হওয়ায় মুকুল হোসেনের দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করছে দুদকের যশোর কার্যালয়। তার নথিপত্র দুদকে সরবরাহ করতে

বেনাপোল কাস্টম হাউসে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এ নথি সরবরাহের এ-সংক্রান্ত আদেশও জারি করেছে বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এতে উপকমিশনার অথেলো চৌধুরীকে সভাপতি করে ছয় সদস্যের কমিটি করা হয়েছে। বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষের এ আদেশে আরও বলা হয়েছে, ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত এ টাকা জব্দ করতে দুদকের যশোর অফিসে সরবরাহ করতে বলা হয়েছে।

বেনাপোল কাস্টম হাউস সূত্রে জানা গেছে, বিমানবন্দরে দায়িত্বরত একটি গোয়েন্দা সংস্থা মুকুল হোসেনকে টাকাসহ আটক করে। পরবর্তী সময়ে বেনাপোল কাস্টম হাউসের কমিশনার আব্দুল হাকিম তাকে বরখাস্ত করেন। মুকুল হোসেন ২০১০ সালে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ঢাকাতে ক্যাশিয়ার পদে যোগ দেন। পরে ২০১৭ সালে তিনি সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা পদে উন্নীত হন। তিনি ২০২০ সালের নভেম্বরে বেনাপোল কাস্টম হাউসে যোগ দেন।